ফ্রেন্ড সার্কেলের মধ্যে সবার থেকে নিজের ভালো অবস্থান দেখতে কে না চায়!

 

এই চাওয়াটা শুরু হয় সেই ছোট বেলা থেকে যখন আপনি প্লে বা নার্সারিতে পড়াশুনা শুরু করেন।

বন্ধুদের সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে টিকে থেকে আপনাকে হতে হয়েছে ক্লাসের ফার্স্ট বা সেকেন্ড।

 

কিন্তু আজ হঠাৎই দেখলেন যে আপনারই ক্লাসের শেষের সারির বন্ধু আপনার থেকে অনেক বেশি আয় করছে, তখন মনের ভেতর কেমন জানি একটা চিনচিনে ব্যথা অনুভব হয় তাই না?

 

এটা যে ওই বন্ধুর প্রতি জেলাসি থেকে তা কিন্তু সব সময় ঠিক না।

 

যাই হোক, আপনি আপনার ক্লাসের ফার্স্ট কিংবা সেকেন্ড বা শেষ সারির যেই হোন না কেন আপনার জন্য আজ আমি ধোনি হবার একটি কার্যকরী উপায় নিয়ে এসেছি যার সাহায্যে আপনি আপনার বন্ধুদের সবার থেকে বেশি আয় করতে পারবেন!

 

তো জেনে নেয়া যাক সেই উপায় সম্পর্কে।

 

সকল বন্ধুদের থেকে বেশি আয়ের সিক্রেট!

আপনাকে আপনার বন্ধুদের থেকে বেশি আয় করতে হলে যে তাদের থেকে আপনার ভালো চাকুরী বা ভালো ব্যবসা করতে হবে তা কিন্তু নয়।

 

এটা জাস্ট একটা সিম্পল ম্যাথ।

 

হ্যা, আপনাকে একটা সিম্পল ম্যাথ কোষে সেই অনুযায়ী চলতে হবে।

 

তো ম্যাথটা কেমন?

 

আপনাকে এখন থেকে একে একে অনেকগুলো প্যাসিভ ইনকাম সোর্স তৈরী করতে হবে।

 

আপনি যদি আপনার সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে আয় বাড়াতে চান, তবে তা জীবনেও সম্ভব নয় কারণ আপনার হাতে একটা লিমিটেড টাইম দেয়া আছে যা আপনার বন্ধুদের ক্ষেত্রেও একই।

 

আপনিও প্রতিদিন ২৪ ঘন্টা সময় পান, আপনার বন্ধুরাও তাই পায়।

 

আপনার মাসে ৩০ দিন, তাদের ও তাই।

 

তাহলে তাদেরকে টপকানো কিভাবে সম্ভব?

 

ওই যে বললাম অজস্র প্যাসিভ ইনকাম তৈরির মাদ্ধমে!

 

এখন প্রশ্ন হতে পারে প্যাসিভ ইনকাম কি ও কিভাবে এতো এতো প্যাসিভ ইনকাম সোর্স তৈরী করা যাবে তাতে কি অনেক খরচ হবে না!!

 

তো প্রথমেই একটু প্যাসিভ ইনকাম সম্পর্কে দু-একটি কথা বলে নেই।

 

প্যাসিভ ইনকাম হলো এমন একটি ইনকাম ব্যবস্থা যেখানে আপনার আয়ের সাথে আপনার ওই কাজে একটিভ থাকার কোনো সম্পর্ক নেই।

 

তার মানে হলো আপনি এরকম একটি ইনকাম ব্যবস্থা তৈরী করতে পারলে তা থেকে ইনকাম জেনারেট করতে তার সাথে সব সময় লেগে থাকতে হবে না।

 

এই লেগে না থাকার সুফলই আপনাকে অন্যদের থেকে বেশি আয়ের পথ দেখাবে কারণ আপনি এরকম অজস্র ইনকাম সোর্স তৈরী করতে পারবেন যেহেতু তার অলটাইম মেইনটেনেন্স এর প্রয়োজন হচ্ছে না।

 

প্যাসিভ ইনকাম হতে পারে বাড়ি ভাড়া, কোনো যানবাহন থেকে আয়, জমিতে বিনিয়োগ, কোনো ব্যবসায় স্লিপিং পার্টনার হিসেবে ইনভেস্টমেন্ট ইত্যাদি।

 

এখন আপনার ভয় লেগে গেলো তো এই ভেবে যে তাহলে তো আপনাকে অসংখ্য টাকা লগ্নি করতে হবে যা আপনার কাছে নেই!

 

আসলে বর্তমানে অনলাইনেও অনেক প্যাসিভ ইনকাম তৈরীর অপশন রয়েছে এবং অনলাইনের এই ব্যবস্থাসমূহের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো ইনভেস্ট একেবারেই না করে শুধু মেধা ও পরিশ্রম দ্বারা অনলাইন প্যাসিভ ইনকাম সোর্স তৈরী করা যায়।

 

কিছু অনলাইন প্যাসিভ ইনকাম আইডিয়া এখানে দেয়া হলো:

এফিলিয়েট মার্কেটিং 

এডসেন্স

ডিজিটাল প্রোডাক্ট যেমন কোর্স, ইবুক ইত্যাদি বিক্রি

 

আর আপনার যদি কিছু ক্যাপিটাল থেকে থাকে তবে তা দিয়ে কিছু ফিজিক্যাল বা ট্যাঞ্জিবল অ্যাসেট এ বিনিয়োগ করুন।

 

তাহলে আপনার অনলাইন ও অফলাইন মিলিয়ে অনেক ইনকাম সোর্স তৈরী হয়ে যাবে এবং আপনি দেখবেন যে অল্প কিছু বছরের মধ্যেই আপনার আয় কয়েকগুন বেড়ে গেছে।

 

বেশি বেশি প্যাসিভ ইনকাম তৈরী করুন, আপনার বন্ধুদের সবার থেকে বেশি আয় করুন এই কামনায় আজ এখানেই আমার পোস্টটি শেষ করছি।

 

ছোট্ট একটি অনুরোধ! আমার পোস্টটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই অবশ্যই তা শেয়ার করে অন্যদেরকেও জানিয়ে দিন।