পার্টটাইম ব্যবসা: অন্য যেকোনো কাজের পাশাপাশি এই ব্যবসাগুলি করা যাবে

আমাদের চলতি ব্যস্ত জীবনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ সময় কেটে যায় বসে বসে অথবা ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে। এই ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে কাটানো সময়টুকু যদি আমরা কোন ব্যবসার কাজে লাগাতে পারি তাহলেই সেটা হয়ে উঠতে পারে পার্ট-টাইম কোন ব্যবসা।

 

হ্যা, আজ আমি আপনাদের এই অলস সময়টা কিভাবে পার্ট টাইম ব্যবসায় পরিণত করে টাকা ইনকাম করতে পারেন তার ৬ টি উপায় ধাপে ধাপে ব্যাখা করবো। যার মাধ্যমে আপনি ১০০% সফলতা পাবেন।

 

আসুন তাহলে জেনে নিই ৬ টি উপায়।

 

১. ব্লগিং

ব্লগিং এমন একটা মাধ্যম যার মাধ্যমে মানুষ তাদের মনের কথা তুলে ধরার পাশাপাশি এটা থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে নিজের পকেটে। আপনি আপনার নিজের ব্লগে ব্যক্ত করতে পারেন আপনার মনের সমস্ত লুকানো কথা। হতে পারে সেটা প্রতিবাদী কথা, হতে পারে সেটা আপনার মধ্যে থাকা কোন টেকনোলজিক্যাল ব্যাখ্যা বা হতে পারে সেটা আপনার এলাকায় ঘটে যাওয়া কোন ঘটনা।

 

২. অ্যাডসেন্স

অ্যাডসেন্স হল গুগলের অ্যাড নেটওয়ার্ক। আপনি যদি গেম মেকার হয়ে থাকেন বা আপনার যদি কোন ব্লগিং সাইট থাকে বা আপনার যদি কোন ইউটিউব চ্যানেল থাকে তাহলে এই অ্যাডসেন্সই হবে আপনার পার্ট টাইম ব্যবসার একটা গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। আপনার সাইট গুলো অ্যাডসেন্সে অ্যাড করে দিলেই টাকা আসবে সকল সময়। যত ভিউ তত টাকা।

 

৩. ফ্রিল্যান্সিং

অনলাইন জগতের বড় এবং তুমুল জনপ্রিয় একটা প্লাটফর্ম হল এই ফ্রিল্যান্সিং। শুধু আপনাকে দক্ষ একজন কারিগর হয়ে উঠতে হবে। কারণ এই প্লাটফর্মে দক্ষতা বিশিষ্ট লোকের অভাব নেই। শুধু আপনি এই প্লাটফর্মে অন্যদের পেছনে ফেলে আপনার দক্ষতা দেখাতে পারলেই আপনি হয়ে উঠতে পারেন লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক। শুধু কাজ জানতে হবে এর জন্য। যেমন ওয়েব ডেভেলপার, ভিডিও মেকার, কন্টেন্ট রাইটার, গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি শত শত কাজ এখানে রয়েছে। শুধু নিজের বেস্টটা দিয়ে অন্যদের পেছনে ফেলে আপনার দক্ষতা অনুযায়ী কাজ খুজে নিতে হবে। পার্ট টাইম ব্যবসার জন্য এই প্লাটফর্ম হয়ে উঠতে পারে আপনার অন্যতম একটা মাধ্যম।

 

৪. ই-কমার্স

আপনি যদি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়ে থাকেন। তাহলে ই-কমার্স হবে আপনার পার্ট টাইম ব্যবসার আরেকটা অন্যতম মাধ্যম। আপনি পার্ট টাইমে আপনার প্রতিষ্ঠানের সকল পণ্য ঘরে বসে সেল দিতে পারবেন এই ই-কমার্স এর মাধ্যমে। আপনার পণ্য গুলো ভাল করে সাজিয়ে মূল্যসহ বিবরণ লিখে যদি আপনার স্যোসাল মিডিয়ায় বা বিভিন্ন অনলাইন কেনা বেচার ওয়েবসাইটে পোস্ট করেন, তাহলে অতিশীঘ্রই আপনি সফলতা পাবেন। শুধু সফলতাই নয়, আপনার প্রতিষ্ঠানের জনপ্রিয়তাও বাড়বে দ্বিগুণ হারে।

 

৫. ওয়েবসাইট ফ্লিপং

আপনি খুব সিম্পল ভাবে একটা ওয়েবসাইট খুলে সেটা যদি দিনে দিনে ডেভলপমেন্ট করতে পারেন, তাহলে আপনার সেই সিম্পল ওয়েবসাইটা সেল দিতে পারবেন অকল্পনীয় দামে। আপনার খরচ যা হবে তার ৩০ গুণের বেশি টাকা আপনি পাবেন। এর জন্য আপনার হয়তো একটু বেশি সময় লাগতে পারে। কিন্তু সময় বেশি লাগলেও আপনি আপনার সেই সময়ের উপযুক্ত দামের থেকেও বেশি পাবেন।

 

৬. ইউটিউব

এই জেনারেশনের আরেকটা সহজ মাধ্যম ইউটিউব। পার্ট টাইমে এটাও সহজ একটা মাধ্যম। সহজ হলেও টাকা অনেক বেশি। কারণ আপনি পার্ট টাইমে যাস্ট আপনার ভাল লাগার বিষয় গুলো ভিডিও এর মাধ্যমে ইউটিউবে তুলে ধরতে পারলেই আপনি সফল ভাবে অনেক অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

 

সবশেষে এই টুকু বলি যে, বসে থেকে বা ঘুমিয়ে থেকে সময় নষ্ট না করে সময়টাকে কাজে লাগান, তাহলে এই পার্ট টাইম কাজের জন্যই হয়তো আপনি একদিন সফল ব্যক্তিদের খাতায় নাম লেখাতে পারেন। মনে রাখবেন, সময় ও নদীর স্রোত কারোর জন্য অপেক্ষা করে না।

 

প্যাসিভ ইনকাম কি ও কিভাবে তা করা যায়?

আপনার ব্যবসার লাভ বাড়াতে চাইলে পড়ুন

Leave a Reply