ইউনিক বিজনেস আইডিয়া: এমন কিছু ব্যবসা যা আপনার জীবনকে বদলে দেবে

বেকার জীবনে পড়ে থাকা মানুষ গুলো যখন কোন বিজনেসের কথা মাথায় আনে তখন অধিকাংশ মানুষই দিশে হারা হয়ে পড়ে। আর তার প্রধান কারণ হল, তারা সঠিক বিজনেস আইডিয়া খুঁজে পায় না। ভুল পথে পা বাড়িয়ে নিজের অনেক অর্থ নষ্ট করে ফেলে। তখন সে স্তব্ধ হয়ে যায়।

 

এই সমস্ত মানুষ বা যারা এখন বিজনেসের কথা চিন্তা করছেন তাদের জন্য আমার কিছু ইউনিক বিজনেক আইডিয়া। আমি এমন কিছু আইডিয়া দিবো যার মাধ্যমে আপনি আপনার বিজনেসে ১০০% সফলতা পাবেন। নিচে সেগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করলাম।

 

ইউনিক বিজনেস আইডিয়া

১। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

সামান্য কিছু পুঁজি খরচ করে আপনি শুরু করতে পারেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এটা একটা অনলাইন ব্যবসা। এখানে কম কষ্টের পাশাপাশি আপনার সময়ও খুব কম ব্যয় হবে। বিভিন্ন অনলাইন কেনা বেচার সাইট বা আপনি চাইলে ফিজিক্যালি কোন কম্পানির প্রোডাক্ট আপনার রেফারেন্সে সেল করে দিলেই আপনি কমিশন পাবেন। এই পদ্ধতিকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলে।

 

যত সেল তত কমিশন। এর জন্য আপনাকে ঐ সমস্ত কম্পানির সাথে কমিশনের বিষয়ে কথা বলে নিতে হবে। আপনি আপনার আশানুরূপ কমিশন থেকেও অনেক বেশি কমিশন পাবেন এই কাজে। বিভিন্ন স্যোসাল মাধ্যম গুলো আপনি এর জন্য ইউজ করতে পারেন। তাছাড়া আপনি ছোট একটা ওয়েবসাইট খুলেও এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

 

২। অ্যাডসেন্স

অ্যাডসেন্স এমন ধরনের একটি অনলাইন অ্যাড নেটওয়ার্ক, যার মাধ্যমে আপনি লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন। অ্যাডসেন্সের কাজই হল আপনাকে টাকা ইনকাম করে দেওয়া। আর সেই ইনকামের টাকা অ্যাডসেন্স নিজেই সংগ্রহ করে রাখে। আপনি যখন তখন সেই সংগৃহীত টাকা নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করতে পারবেন।

 

অ্যাডসেন্সের অ্যাড ইউজ করতে চাইলে আপনার কিছু অনলাইন মাধ্যম থাকতে হবে। এই যেমন ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, মোবাইল অ্যাপস, কম্পিউটার অ্যাপস ইত্যাদি। আপনি আপনার অনলাইন এই সমস্ত মাধ্যম গুলো অ্যাডসেন্সের সাথে জুড়ে দিলেই আপনার ইনকাম শুরু হয়ে যাবে।

 

৩। ব্লগিং

কেমন হবে যদি আপনার নিজেরই একটা ওয়েবসাইট থাকে? নিশ্চয়ই ভাল হবে। কারণ নিজের ওয়েবসাইট থাকলে নিজেই সেখান থেকে প্রচুর ইনকাম করে আনতে পারবেন অনায়াসে। ঠিক ব্লগিং তেমন একটা ওয়েসসাইট মাধ্যম। আপনার ব্লগে আপনি নিজের পছন্দ অনুযায়ী কনটেন্ট পোস্ট করতে পারবেন।

 

আর আপনার ঐ পোস্ট যত মানুষ দেখবে ততই আপনার ইনকাম হবে। তবে ব্লগটা অ্যাডসেন্সে অ্যাড করে নিতে হবে ইনকাম শুরুর জন্য। আপনি যে কোন ধরনের পোস্ট এখানে করতে পারেন। হতে পারে সেটা কোন নিউজ, কোন অনলাইন ট্রিক্স বা কোন বিনোদনমূলক পোস্ট। তবে এডাল্ট কোন পোস্ট এখানে করা যাবে না।

 

৪। ফ্রিল্যান্সিং

নিশ্চয়ই নাম শুনেছেন। এখন এর মত অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস এবং টাকা ইনকামের সহজ মাধ্যম খুব কমই আছে। বহুল জনপ্রিয় একটি মার্কেট প্লেস এটা। এখানে আপনি আপনার মেধা অনুযায়ী কাজ পাবেন। শুধু একটা দুইটা নয়। এখানে শত শত কাজ রয়েছে। ওয়েবসাইট ডেভলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, অ্যাপস মেকার, কনটেন্ট রাইটার, ডিজিটাল মার্কেটিং ইত্যাদি।

 

অনলাইন ভিত্তিক প্রায় এমন কোন কাজ নেই যে এখানে পাওয়া যায় না। এখন প্রায় সবাই এই মার্কেট প্লেসের দিকে বেশি অগ্রহী হচ্ছে। যার ফলে এখানে মেধাবী লোকের অভাব নেই। লক্ষ লক্ষ লোকের ভিতর নিজেকে চেনাতে পারলেই আপনি হয়ে উঠতে পারেন সফল একজন ফ্রিল্যান্সার। ইনকাম করতে পারবেন লক্ষ লক্ষ টাকা।

 

৫। ইউটিউব

অনলাইনে ভিডিও দেখার জনপ্রিয় এই নাম সবাই শুনেছি। ইউটিউব চেনে না এমন লোকের খুবই অভাব। আমরা এখান থেকে নিজেদের পছন্দমত ভিডিও দেখি। কিন্তু এই ভিডিও থেকেই আপনি বিপুল পরিমাণ ইনকাম করতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনার নিজেরই ভিডিও তৈরি করতে হবে। আর সেগুলো নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করতে হবে।

 

তারপর আপনার চ্যানেলটা অ্যাডসেন্সের সাথে অ্যাড করে দিলেই অ্যাডসেন্স আপনার ভিডিও এর উপর অ্যাড শো করাবে। আর যত মানুষ আপনার ভিডিও দেখবে সেই অনুযায়ী আপনার ইনকাম হবে। কমেডি ভিডিও, টিউটোরিয়াল ভিডিও, মিউজিক্যাল ফ্লিম, শর্ট ফ্লিম যে কোন ধরনের ভিডিও আপনি তৈরি করতে পারবেন আপনার চ্যানেলের জন্য। তবে কোন পর্ণোগ্রাফী কিন্তু ইউটিউব একদমই রেসপেক্ট করে না।

 

ভুল পথে পা বাড়ানোর আগে আমার দেওয়া বিজনেস আইডিয়া গুলো ট্রাই করেন। আপনি ১০০% সফলতা অর্জন করতে পারবেন এটা আমার বিশ্বাস।

ছাত্র অবস্থায় আয়: ৮ টি অভাবনীয় পদ্ধতিতে আপনিও আয় করুন

ঘরে বসে আয় করার উপায়: অনেক কয়টি উপায় সম্পর্কে বলছি আজ

বাড়তি আয়ের উপায় ~ ৬ টি উপায়ে আপনিও বাড়তি আয় করতে পারেন 

Leave a Reply