ইউটিউব থেকে কত আয় করা যায় তার সোজাসাপ্টা আলোচনা

হ্যালো বন্ধুরা, ইউটিউব থেকে আয় করা যায় শুনে নিশ্চয়ই একটু ঘাবড়ে গেছেন। কিন্তু এটাই সত্যি যে, ইউটিউব থেকে অনেক অর্থ আপনি আয় করতে পারেন। আজ আমি আপনাদের সমস্ত কিছু ক্লিয়ার করে বিস্তারিত ভাবে বোঝাবো।

 

প্রথমে আমি একটি উদাহরণ দেই। আমরা সবাই কিন্তু টেলিভিশন দেখি। কিন্তু জানেন কি যে, টেলিভিশন কর্তৃপক্ষের আয় হয় কিভাবে? তারা তো শুধু আমাদের অনুষ্ঠানই দেখিয়ে যায়। তাহলে ইনকাম করে কিভাবে?

 

টেলিভিশনে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাঝে মাঝে বিভিন্ন কম্পানির অনেক প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ ঐ সকল কম্পানির কাছ থেকে টাকা নিয়ে থাকে তাদের বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য। টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ যত বেশি বিজ্ঞাপন প্রচার করবে ততই ইনকাম আসবে তাদের।

 

ইউটিউবিং কি: সবথেকে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট সম্পর্কে কিছু কথা

 

ঠিক একই রকম ভাবে ইউটিউবে ইনকাম হয়। আপনি খেয়াল করে দেখবেন যে, আপনি যখন ইউটিউবে কোন ভিডিও দেখেন তখন ইউটিউবের নিচে একটা ছোট বিজ্ঞাপন বা অ্যাডের একটা ছবি আসে। আবার আপনার ভিডিও এর বাইরে ডান পাশেও মাঝে মাঝে একটা ছবি আকারে বিজ্ঞাপন বা অ্যাড আসে। আবার মাঝে মাঝে দেখবেন ভিডিও দেখার সময় ভিডিও এর মাঝ খানে অথবা ভিডিওটি শুরুর সাথে সাথে মাত্র কয়েক সেকেন্টের একটা বিজ্ঞাপন দেখায়। আপনি যখন যে চ্যানেলের ভিডিও দেখেন, আর ওই ভিডিওতে যখন আপনি এই অ্যাডগুলো দেখতে পান তখন ঐ চ্যানেলের বা ভিডিও এর মালিক টাকা পায়। এভাবে ভিডিও যত মানুষ দেখবে ততই মানুষ ঐ বিজ্ঞাপন গুলো দেখবে আর ততই টাকা ইনকাম হবে।

 

ঠিক এভাবেই ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা হয়। এবার ভাবছেন যে ঠিক কত টাকা পাবেন আপনি ইউটিউব থেকে, তাই তো? এবার আমি সেই বিষয়ে বিস্তারিত বলবো।

 

আসলে টাকা ইনকামটা ঠিক আপনার ভিডিওর ভিউ এবং বিজ্ঞাপনের উপর ডিপেন্ড করে। আপনার যতবেশি ভিউ হবে ততই ইনকাম হবে। তবে বিজ্ঞাপন হিসাবে টাকা আসে। যেমন আমাদের দেশের বিজ্ঞাপন দাতারা ইউটিউবে বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য খুব কম টাকা গ্রাহকদের দেয়। কিন্তু অন্যান্য দেশের বিজ্ঞাপন দাতারা আমাদের দেশের বিজ্ঞাপন দাতাদের থেকে অনেক গুণ বেশি টাকা দেয়। এটা বোঝা যায় সি পি সি থেকে। আপনি আপনার অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে বুঝতে পারবেন যে কোন অ্যাডের সি পি সি কেমন।

 

সচারচর আমাদের দেশের বিজ্ঞাপন দাতারা কয়েক সেন্ট করে পেমেন্ট করে এক একটা বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য। তবে বাইরের দেশের কিছু বিজ্ঞাপন দাতা আছে যারা কয়েক ডলার পর্যন্ত পেমেন্ট করে এক একটা বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য। আমাদের বাংলাদেশের বেশির ভাগ চ্যানেলের ভিডিওতে বাংলাদেশি বিজ্ঞাপনই বেশি প্রচারিত হয়। কারণ আমাদের ভিডিও গুলো বেশির ভাগ বাঙালিদের জন্যই তৈরি করা হয়ে থাকে। তবে আপনার চ্যানেলের ভিডিও যদি ইন্টারন্যাশনালি হয়ে থাকে। মানে আপনার ভিডিও যদি হয় ইংলিশে অথবা ইংলিশ সাবটাইটেলে তাহলে বাইরের দেশের লোক সেই ভিডিও গুলো যখন দেখবে, তখন বাইরের বিজ্ঞাপন গুলো আপনার ভিডিওতে প্রচার করা হবে। তখন আপনার ইনকাম বেশি হবে।

 

তবে বাংলাদেশে একটা চ্যানেল খুলে আপনি মিনিমাম মাসে ৫০০০ টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন। আমাদের দেশে অনেক ইউটিউব চ্যানেল আছে যেগুলা শুধু বাঙালি কন্টেন্ট দিয়ে তৈরি করা। তারা মাসে প্রায় ৮ লক্ষ টাকারও বেশি ইনকাম করছে। সব কিছু ডিপেন্ড করবে আপনার ভিডিওর ভিউ এর উপর। যত ভিউ ততই ইনকাম।

 

এবার মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে, ইনকামের টাকা গুলা কোথায় আসবে আর পাবেন বা কিভাবে? আপনাকে এর জন্য কিছু কাজ করতে হবে।

 

আপনার চ্যানেল খোলার পর আপনাকে গুগলের অ্যডসেন্সে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। সেখানে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি মনিটাইজ করে দিলেই অ্যাডসেন্স আপনার ভিডিও এর উপর অ্যাড শো করাবে। আর টাকা গুলো অ্যাড হবে অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টেই। মূলত এখানে ডলার হিসাবে অ্যাড হয়। আপনি অ্যাডসেন্সে আপনার একটি অনলাইন ব্যাংক ম্যাথডের মাধ্যমে টাকা গুলো উইড্রো করতে পারবেন। টাকা গুলো সরাসরিই আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টেই আসবে।

 

আসা করি ক্লিয়ারলি সব ভাল করে বোঝাতে পেরেছি।

Leave a Reply