অল্প পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা: লাভজনক কিছু ব্যবসার আইডিয়া

স্বল্প পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা সবার মাথায় আসে না। আপনি বিশ্বাসই করবেন না যে, আপনি অল্প পুঁজিতে কত পরিমাণ ইনকাম করতে পারবেন। এখন সকল মানুষই চায় যে অল্প পুঁজিতে বেশি আয়। কারণ ব্যবসা করার মন মানষিকতা থাকলেও অনেকে পুঁজির জন্য ভয়ে পেয়ে ফিরে আসেন। কিন্তু আমি আপনাদের দেখাবো কিভাবে অল্প ব্যয়ে আপনি সফলভাবে অধিক আয় করতে পারবেন।

 

১। ফ্রিল্যান্সিং

অনেকেই এখন ব্যবসার দিকে আগাতে চান না। যার প্রধান কারণ পুঁজি। সবাই মনে করে যে পুঁজি বেশি না হলে ব্যবসায় ভাল আয় হয় না। বেশি পুঁজি ব্যবসায় লাগিয়ে যদি লাভের থেকে লস বেশি হয় তাহলে তো ক্ষতিই বেশি হবে। কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং এমন একটি প্লাটফর্ম যেখানে আপনাকে আয় করার জন্য কোন পুঁজিই লাগবে না। শুধু আপনার বাসায় ইন্টারনেট লাইন আর একটি ভাল মানের কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকলেই হবে। আপনি এখানে হিউজ পরিমাণ কাজ করতে পারবেন। ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইনের মত কাজ করতে পারবেন এখান থেকে। আপনি এখানে প্রায় সব ধরনের কাজ পাবেন। আপনি আপনার মেধার যোগ্যতায় কাজ করতে পারলে বিপুল আয় করতে পারবেন। শুধু নিজেকে চেনাতে হবে। আপনাকে শুধু একটু কষ্ট করতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং এ আপনার মেধা অনুযায়ী অ্যাকাউন্ট বানাতে হবে। বায়াদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে আপনার কাজের প্রমাণ দেওয়ার জন্য। বায়ার খুশি হলে আপনার কাজের অভাব হবে না।

 

২। ড্রপশিপিং

অনলাইন ব্যবসার বিভিন্ন কম্পানির কাছে বায়ার পৌছে দেওয়াই হল ড্রপশিপিং এর কাজ। আপনি যদি কোন কম্পানির সাথে যোগাযোগ করে তাদের কাছে বায়ার পৌছে দিতে পারেন তাহলে ঐ কম্পানি আপনাকে কমিশন দেবে। আপনি যতবেশি বায়ার এনে দেবেন আপনার ইনকাম তত বেশি হবে। এর জন্য আপনার খুবই অল্প পরিমাণ ব্যয় হবে।

 

৩। ইউটিউব

ভিডিও দেখার জন্য সবচেয়ে আগে যার নাম মনে আসে সেটা হল ইউটিউব। আমরা সবাই ইউটিউব দেখি। কিন্তু আমরা কি কখনো কল্পনা করেছি যে এই ইউটিউব থেকে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন? হ্যা, এই ইউটিউব থেকেই বিপুল পরিমাণে ইনিকাম করা যায়। আর সেটা করা যায় অল্প পুজিতেই। আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের জন্য শুধু ভিডিও তৈরি করবেন। আর প্রথম দিকে আপনি যেসকল ভিডিও তৈরি করবেন সেগুলো অল্প ব্যয়ে তৈরি করবেন। পরে যখন আপনার ইনকাম বাড়বে তখন আপনি আপনার ইচ্ছামত পুঁজি বাড়িয়ে ভিডিও বানাতে পারবেন। আপনি বিভিন্ন ধাচের ভিডিও বানাতে পারেন, হতে পারে সেটা কমেডি ভিডিও বা রোমান্টিক বা টেকনোলজিক্যাল ভিডিও।

 

৪। ওয়েবসাইট ফ্লিপিং

আপনার অল্প ব্যয়ের আরেকটি লাভজনক ব্যবসা হল অয়েবসাইট ফ্লিপিং। এখানে আপনি অল্প পুঁজি খাটিয়ে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সাইট বিক্রি করে দেওয়াকে ওয়েবসাইট ফ্লিপিং বলে। আপনি অল্প পুঁজি খাটিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। সেটা আপনি আস্তে আস্তে ডেভলপ করবেন। আর যখন আপনার ঐ সাইটের ভিসিটর বেশি হবে বা জনপ্রিয় হবে, তখন সেটা আপনি আপনার পুঁজি থেকে কয়েক গুণ বেশি দামে বিক্রি করে দিতে পারবেন।

 

৫। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলতে বিভিন্ন কম্পানির প্রোডাক্ট আপনি আপনার রেফারেন্সে সেল করে দেওয়াকে বোঝায়। এখন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মত এত সহজ কাজ অনলাইনে পাওয়া দুষ্কর। এর জন্য আপনার তেমন পুঁজি খরচ হবে না। আপনি শুধু অনলাইনের বা অফলাইনের কোন কম্পানির পণ্য গুলো আপনার রেফারেন্সে সেল করে দিতে পারলেই আপনি অনেক অনেক কমিশন পাবেন। আপনি যত বেশি সেল দিতে পারবেন, তত বেশি কমিশন পাবেন এর থেকে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এখন খুবই জনপ্রিয় একটা ব্যবসা।

 

৬। অ্যাডসেন্স

বিভিন্ন সাইটে অ্যাড শো করিয়ে টাকা ইনকামের মাধ্যম হল এই অ্যাডসেন্স। এর মাধ্যমে আপনি হিউজ পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনার কোন স্বল্প পুঁজির সাইটে অ্যাডসেন্স অ্যাড করে দিলে আপনি সেখান থেকে অকল্পনীয় টাকা আয় করতে পারবেন। তাছাড়া আপনি যদি পিসি বা মোবাইল ফোনের জন্য বিভিন্ন অ্যাপস তৈরি করতে পারেন তাহলে সেগুলো অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে আপনার কাংক্ষিত ব্যয়ের থেকে বেশি মাত্রায় আয় করতে পারবেন।

 

অল্প পুঁজিতে এর থেকে লাভজনক ব্যবসা আছে বলে আমার মনে হয় না। কারণ অনলাইন এমন একটা মাধ্যম যেখানে আপনি কাজ করে যেমন বিপুল পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন তেমন আপনার সময়ও বাঁচাবে প্রচুর ও কষ্টও হবে তুলনামূলক ভাবে খুবই কম।

 

পড়তে থাকুন:

ঘরে বসে আয় করার উপায়
ছাত্র অবস্থায় আয় করার উপায়
চাকুরীর পাশাপাশি আয় করার উপায়

Leave a Reply